Bavar-373 এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম

Bavar-373 এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম
.
.
সম্প্রতি ইরান তাদের নিজস্ব প্রযুক্তিতে তৈরি দূরপাল্লার এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম বাভার-৩৭৩ সার্ভিসে এনেছে । এটি হচ্ছে ইরানের তৈরি প্রথম কোন দূরপাল্লার এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম ।
.
.
বাভার শব্দটির অর্থ হচ্ছে সাহসী এবং ৩৭৩ হচ্ছে মহানবী (সাঃ) এর সংখ্যাক্রমিক নাম অনুসারে । আর্ন্তজাতিক নিষেধাজ্ঞার কারনে ইরান ২০১০ সালে রাশিয়া থেকে ৯০০ মিলিয়ন ডলারের চুক্তি করা S-300PMU-2 পায়নি ।
.
তাই ইরান ঠিক করলো তারা নিজেরাই নিজস্ব প্রযুক্তিতে দূরপাল্লার এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম তৈরি করবে ।
.
.
এই লক্ষ্য ২০১১ সালের ২২ নভেম্বর তারা বাভার-৩৭৩ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমের প্রথম প্রটোটাইপ নির্মান করে । ২০১৫ সালে তারা এই এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম তৈরির কথা জনসম্মুখে প্রকাশ করে ।
২০১৫ সালে ইরান আবার রাশিয়ার কাছ থেকে S-300 এর ডেলিভারি পায় ।

ইরানের দাবি অনুযায়ী বাভার-৩৭৩ রাশিয়ার S-300 এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমের থেকে সেরা ।
এতে রয়েছে উন্নত সব প্রযুক্তি ও অত্যাধুনিক যোগাযোগ ব্যবস্থা ।
এছাড়া ইরান আরো দাবি করে যে তাদের তৈরি দূরপাল্লার এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম আমেরিকার Patriot PAC-3 এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম এর থেকে অনেক বেশি আধুনিক ও কার্যকরী ।
.
.
ইরানের পুরো বাভার-৩৭৩ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম কে সাজানো হয়েছে ১টি ডাটা ফিল্ড ম্যানেজম্যান্ট সিস্টেম ভিহেকেল , ১টি কমান্ড ও কন্ট্রোল সিস্টেম ভিহেকেল , ১টি রাডার সিস্টেম ভিহেকেল ও ১টি মিসাইল লঞ্চার ভিহেকেলের মাধ্যমে ।
.
.
১টি ৬x৬ চাকা বিশিষ্ট ট্রাকে ৪টি লঞ্চার থাকে যাতে আবার ৪টি Sayyad-4 সার্ফেস টু এয়ার মিসাইল থাকে ।
.
ইরানের দাবি অনুযায়ী বাভার-৩৭৩ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম পৃথিবীর যেকোন ঝড়ো আবহাওয়া কিংবা প্রতিকূল পরিবেশে এটি অপারেশনাল কার্যক্রম চালাতে পারে । এছাড়া এই এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমের রাডার ও সেন্সর জ্যামিং করা অত্যান্ত কঠিন ।
.
.
বাভার-৩৭৩ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমে রয়েছে ১টি পেইজড অ্যারি রাডার যা ৩০০ কিঃমিঃ এর মধ্যে বিভিন্ন টার্গেটে সার্চ ও ট্রাকিং করতে পারে ।
এই পেইজড অ্যারি রাডার একোই সাথে ১০০টি টার্গেট শনাক্ত করতে পারে এবং ৬০ টার্গেট ট্রাকিং করতে পারে ।
.
.
বাভার-৩৭৩ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম Sayyad-4 বিমান বিধ্বংসী মিসাইল সিস্টেম ব্যবহার করা হয়েছে । এই মিসাইলটি ২০০ কিঃমিঃ রেঞ্জ পর্যন্ত যে কোন টার্গেট ধ্বংস করতে সক্ষম ।
.
এই Sayyad-4 বিমান বিধ্বংসী মিসাইল ম্যাক ৬ বা শব্দের চেয়ে ৬ গুন বেশি গতিতে ৩০ কিঃমিঃ উচ্চতায় যে কোন টার্গেট ধ্বংসের ক্ষমতা রাখে । এটি একসাথে ৬টি টার্গেট ধ্বংস করতে পারে ।
.
যা বাভার-৩৭৩ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেমের সবচেয়ে ভালো দিক।
.
.
ইরানের দাবি অনুযায়ী বাভার-৩৭৩ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম সিস্টেম ২৫০ কিঃমিঃ এর মধ্যে
স্টিলথ যুদ্ধবিমান , ফাইটার যুদ্ধবিমান , বোমারু বিমান , ড্রোন , হেলিকপ্টার , ক্রুজ মিসাইল এমনকি স্বল্প থেকে মাঝারি পাল্লার ব্যালিস্টিক মিসাইল ধ্বংস করতে সক্ষম ।
.
.
.
আসলে সত্যিই যদি নিজেদের দেশ কে উন্নত করার ইচ্ছা থাকে এবং দেশীয় প্রযুক্তি বিশ্বমানের দূরপাল্লার এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম যে তৈরি করা যায় তার সবচেয়ে বড় উদাহারন হচ্ছে এই ইরানের বাভার-৩৭৩ এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম ।

লেখক @ ফারহান জোবান (গবেষক ও ইতিহাসবিদ)

10 thoughts on “Bavar-373 এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *