এক নজরে বর্তমান বিশ্বের যুদ্ধ জাহাজ সমূহ

এক নজরে বর্তমান বিশ্বের যুদ্ধ জাহাজ সমূহ

আজ আলোচনা করবো বর্তমানে যে ধরনের যুদ্ধজাহাজ বিশ্বের সকল নৌবাহিনী তে ব্যবহার করে । সংক্ষেপে সহজ ভাবে বুঝিয়ে বলছি ।
.
বর্তমানে মোট ৫ ধরনের যুদ্ধজাহাজ বর্তমান বিশ্বে দেখা যায় । এইসব শ্রেনীর সকল যুদ্ধজাহাজ মূলত সব দেশ ব্যবহার করে না আর্থিক সংকট ও নানা কারিগরি অসুবিধার জন্য ।
.
যেই ৫ ধরনের যুদ্ধজাহাজ দেখা যায় তা হচ্ছে :-
.
১) ব্যাটেলশিপ যুদ্ধজাহাজ ।
২) করভেট যুদ্ধজাহাজ।
৩) ফ্রিগেট যুদ্ধজাহাজ।
৪) ডেস্ট্রয়ার যুদ্ধজাহাজ।
৫) ক্রুজার যুদ্ধজাহাজ ।



ব্যাটেলশিপ যুদ্ধজাহাজ :-
.
ব্যাটেলশিপ শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ হচ্ছে মানব সভ্যতার ইতিহাসে প্রথম কোন টাইপের যুদ্ধজাহাজ । সেই মধ্যযুগীয় থেকে ২য় বিশ্বযুদ্ধ এমনকি আজো কিছু দেশের নৌবাহিনী তে এই শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ ব্যবহার হচ্ছে ।
.
একটি ডেডিক্যাটেড বা আদর্শ ব্যাটেলশিপ দৈর্ঘ্য ২০০মিটারের অধিক লম্বা হবে এবং ওজনে ২০০০০-৫০০০০ টনের মতো হবে । তবে বর্তমানে এই শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ যুদ্ধের উপযোগী না । এগুলো অস্ত্র থাকে অনেকটা আর্টিলারি কামানের মত । এগুলোর আর্টিলারি কামান অনেক বিশাল থাকে যা দ্বারা কেবল আনগাইডেড ভাবে শত্রুজাহাজে গোলাবর্ষন করে । উদাহারন আমেরিকার ইওয়া ক্লাস ব্যাটেলশিপ ।

করভেট :-
.
করভেট শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ হচ্ছে সবচেয়ে ছোট শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ । এগুলো মূলত তৈরি করা হয় নিজস্ব সমুদ্র উপকূলীয় অঞ্চল রক্ষার জন্য । এই শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ কোনভাবেই গভীর সমুদ্রে যুদ্ধ করতে পারেনা । অনেক সময় সমুদ্র উত্তাল থাকলে এগুলো নিজে থেকেই উল্টিয়ে ডুবে যেতে পারে । 😀
.
করভেট শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ ওজনে ১০০০-২০০০ টন পর্যন্ত হতে পারে । এর বেশি টন ওজনের যুদ্ধজাহাজ কে করভেট বলে না । এই শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজের অস্ত্রশস্ত্র কম থাকে । তবে এই করভেট শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ একটি ফ্রিগেট এমনকি ডেস্ট্রয়ার ধ্বংস করার ক্ষমতা রাখে ।
উদাহারন তুরস্কের আডা ক্লাস করভেট ।
.
.
ফ্রিগেট :-

ফ্রিগেট শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ হচ্ছে মূলত আদর্শগত যুদ্ধজাহাজ । মূলত কম মাথাপিছু আয়ের ও কম উন্নত দেশগুলোর নৌবাহিনীতে ফ্রিগেট যুদ্ধজাহাজের ব্যবহার বেশি ।
এই শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ ব্লু ওয়াটার অর্থাৎ গভীর সমুদ্রে যুদ্ধ করতে পারে ।
.
একটি ফ্রিগেট শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ ওজনে ২০০০-৫০০০ টনের মতো হতে পারে । আর দৈর্ঘ্য ১৫০ মিটারের মত হতে পারে ।
উদাহারন বাংলাদেশের বিএনএস বঙ্গবন্ধু ফ্রিগেট ।
.
.
ডেস্ট্রয়ার :-

ড্রেস্টায়ার যুদ্ধ জাহাজ


আধুনিক নৌযুদ্ধের জন্য আদর্শগত ও শত্রুজাহাজ ধ্বংস করতে পারদর্শী এই ডেস্ট্রয়ার শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ । এই ডেস্ট্রয়ার শ্রেনীর এমনভাবে তৈরি করা হয় যাতে এটি একাধিক মিশন সম্পন্ন করতে পারে ।
উন্নত বিশ্বের দেশগুলো তে প্রধানত ডেস্ট্রয়ার ব্যবহার করে । মূলত ডেস্ট্রয়ার যুদ্ধজাহাজ হচ্ছে তাদের নৌবহরের প্রধান শক্তি ।
.
একটি ডেস্ট্রয়ার শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ দৈর্ঘ্যে ২০০ মিটারের বেশি হয় এবং ওজনে ৫০০০-১৩০০০ টনের মতো হতে পারে ।
এগুলো বিক্রি করা হয় না তবে নিজেদের তৈরি করতে হয় ।
এই ডেস্ট্রয়ার শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজে অধিক অস্ত্রশস্ত্র বহন করতে পারে ।
উদাহারন চীনের Type-052D ডেস্ট্রয়ার ।
.
.
ক্রুজার :-
.
ক্রুজার শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ হচ্ছে মূলত সকল যুদ্ধজাহাজের রাজা বা বাবা ।

ক্রুজার যুদ্ধ জাহাজ

মূলত একটি ক্রুজার শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ বলতে গেলে একাই কয়েকটি স্বল্প উন্নত দেশের নৌবাহিনীকে ধ্বংস করে দিতে সক্ষম ।
পৃথিবীর সকল নৌবাহিনী ভীষন ভয় করে চলে ক্রুজার শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ কে ।
.
একটি ক্রুজার যুদ্ধজাহাজ ১৩০০০-৩০০০০ টন ওজনের ও দৈর্ঘ্য ৩০০ মিটার লম্বা হতে পারে ।
.
এই ক্রুজার যুদ্ধজাহাজে অসংখ্য অস্ত্রশস্ত্র বা মিসাইল বহন করতে পারে ।
একটি ক্রুজারে ৩০০-৫০০ টি পর্যন্ত বিভিন্ন ধরনের মিসাইল বহন করে ।
.
বর্তমানে কেবল ৩ দেশ অর্থাৎ যুক্তরাষ্ট্র , পেরু ও রাশিয়ার কাছে এই ক্রুজার শ্রেনীর যুদ্ধজাহাজ । এগুলো বিক্রি নিষিদ্ধ । এগুলো নিজেদের তৈরি করতে হয় ।
উদাহারন রাশিয়ার কিরভ ক্লাস ক্রুজার ।

লেখক@ফারহান জোবান

Post Author: admin

28 thoughts on “এক নজরে বর্তমান বিশ্বের যুদ্ধ জাহাজ সমূহ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *